হেডলাইন

গাংনী হাসপাতালের সামনে মার্কেট নির্মানে তিন দপ্তরের রশি টানাটানি

গাংনী নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম :

মেহেরপুরের গাংনী হাসপাতালের সামনে মার্কেট নির্মান কে কেন্দ্র করে রশি টানাটানি শুরু হয়েছে। জেলা পরিষদ,সড়ক জনপথ বিভাগ ও গাংনী পৌরসভার মধ্যে এ রশি টানাটানি চলছে। তিন সংস্থার অনড় অবস্থানে বিপাকে পড়েছে হাসপাতাল বাজারের অস্থায়ী দোকানীরা। মেহেরপুর জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো: খায়রুল হাসান স্বাক্ষরিত জেপ/মেহের/২০১৮/৬০ নং স্বারকে গত ১৬-০৫-১৮ ইং তারিখে জমি ইজারা/ ভাড়া প্রদানের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। GANGNI MAPবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয় গাংনীর চৌগাছা মৌজার সি,এস-২৯২২,৪১১৬,আর,এস-৬৬৪৪,৭৮৭১ দাগের হাসপাতালর সামনের অংশে ১২০ বর্গফুট করে ৫৭ টি দোকান অস্থায়ী  ভিত্তিতে ভাড়া দেয়া হবে। আগামী ৩০/৫/১৮ ইং তারিখের মধ্যে আবেদন জমা দেওয়ার আহবান জানানো হয়। এ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর ২২/৫/১৮ ইং তারিখে গাংনী পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র নবীর উদ্দীন স্বাক্ষরিত  মে:/গা:/পৌ:/১৮/১৯৩ নং স্বারকে মার্কেট নির্মান কিংবা পৌর এলাকায় কোন জমি ইজারা না দেওয়ার জন্য পত্র প্রেরণ করে। পত্রে বলা হয়। পৌর এলাকার মধ্যে শহর সৌন্দর্য বর্ধন,ড্রেন নির্মান,ফুটপথ নির্মানের দায়িত্ব পৌরসভার উপর বর্তায়। গাংনী পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র নবীর উদ্দীন বলেন,জয়বায়ু ট্রাষ্ট ফান্ডের সহায়তায় ড্রেন ও ফুটপাথ নির্মাানের কাজ চলমান রয়েছে। এছাড়া নগর উন্নয়ন অবকাঠামো প্রকল্প সহ ওয়াটার ট্রিটমেন্ট,স্যানিটেশনের কাজ দ্রত শুরু হতে যাচ্ছে। তাই জেলা পরিষদকে ইজারা বা মার্কেট নিমান না করতে পত্র মারফত আহবান করেছি। আহবান উপেক্ষা করে ইজারা ও মার্কেট নির্মান করলে জেলা পরিষদের বিরুদ্ধে  মামলা করা হবে। মেহেরপুর সড়ক জনপথের নির্বাহী প্রকৌশলী মো: জিয়াউল হায়দার বলেন,গাংনী হাসপাতালের সামনের জায়গার মালিক সড়ক ও জনপথ বিভাগ। তাই জেলা পরিষদ চাইলে সেখানে মার্কেট নির্মান বা ইজারা দিতে পারবেনা। ইজারা বিজ্ঞপ্তির বিষয়ে কোন ব্যবস্থা নিয়েছেন কি না জানতে চাইলে নির্বাহী প্রকৌশলী মো: জিয়াউল হায়দার বলেন,অফিশিয়াল ভাবে এখন কোন চিঠি আসেনী। চিঠি পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো: খায়রুল হাসান বলেন,আমরা মাপ করে দেখেছি gangni news 24 logo vaহাসপাতালের সামনের অংশ জেলা পরিষদের। জমি তাদের সপক্ষে সড়ক জনপথ এমন কোন কাগজ দেখালে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে। মেহেরপুরের সিভিল সার্জন গাজী খান মো: সামছুদ্দীন বলেন, হাসপাতাল একটি গুরুত্বপূর্ন জায়গা। তাই জেলা পরিষদ চাইলে মার্কেট নির্মান কিংবা ইজারা দিতে পারবেনা। যদি ইজারা দিতে চাই তাহলে আমরা বাধা দেব। জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হাজী গোলাম রসূল বলেন,জায়গা আমাদের আমরা ইজারা দেব মার্কেটও নির্মান করবো। হাসপাতালের অস্থায়ী দোকানীরা জানান, একেবারে রাস্তার পাশে হাসপাতালের প্রাচীর এর মধ্যে সিমিত জায়গা তাই এখানে বড় মার্কেট করলে পখচারীরা দূর্ভোগে পড়বে। দোকারীরা আরো জানান,হাসপাতালের সামনের জায়গা সড়ক জনপথের বলে শুনে এসেছি। এখন শুনছি জেলা পরিষদের। এ জায়গা যদি সড়ক জনপথের না হয় তাহলে ইতোপূর্বে তারা কিভাবে অস্থায়ী দোকান গুলো ভেঙ্গে দিয়েছিলো। এই জায়গা যদি জেলা পরিষদের হয় তাহলে অবৈধ ভাবে দোকান ভাঙ্গার কারনে সড়ক জনপথের বিরুদ্ধে ক্ষতি সাধনের মামলা দায়ের করা হবে।

Spread the love
Updated: May 27, 2018 — 8:39 am

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

© 2017 SoftItHost
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.